তরুণ লীগ! এ লীগের হেডকোয়ার্টার কোথায় ?

তরুণ লীগ!-এ লীগের হেডকোয়ার্টার কোথায়। ৫শ’ টাকা দিয়ে সিল একটা বানালেই তো হয়ে যায়।’

ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠা অচেনা অজানা সংগঠনের সংবাদ না ছাপাতে সংবাদ মাধ্যমের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

১২ মার্চ বিকেলে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে শ্রমিক লীগের সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য এ কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘ছবি ছাপালে আর নিউজ দিলে এরা উৎসাহিত হয়। এর মাধ্যমে তারা চাঁদাবাজি করে। এদেরকে উৎসাহিত করবেন না। দাওয়াত দিলেই চলে যাবেন না।

তিনি প্রশ্ন তুলে বলেন, ‘কৃষক লীগের গুলশান শাখার কি দরকার, ধানমন্ডি শাখার কি দরকার। ধানমন্ডিতে ধানচাষ হয় আমি তো জানি না।’

এ সময় ওবায়দুল কাদের নাম সর্বস্ব সংগঠগুলোর ওপর বিরক্তি প্রকাশ করে বলেন, ‘বাংলাদেশ জাতীয় শ্রমিক লীগের যুক্তরাষ্ট্র শাখার কি দরকার ? শ্রমিক লীগের বিদেশে কি দরকার? সৌদি আরব শাখার কি দরকার? কৃষক লীগের কাতার শাখার কি দরকার? তাতী লীগ নাম দেখলাম কুয়েত না কাতারে। তার আবার দুই কমিটি।’

তিনি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘এসব দোকানের স্বীকৃতি আমরা দেবো না। এগুলো আওয়ামী লীগের সুনাম নষ্ট করছে। জনগণের কাছে ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করছে।’

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বিএনপির ভারতপ্রীতি নিয়ে প্রশ্ন তুলে বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ভারত প্রীতিতে নেই ভীতিতেও নেই। বাংলাদেশের সঙ্গে তাদের বন্ধুত্ব থাকবে। জনগণ না চাইলে এই বন্ধুত্ব থাকবে না।

ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক ইতিবাচক গঠনমূলক বন্ধুত্বপূর্ণ এবং পারস্পরিক স্বার্থের। বাংলাদেশের স্বার্থ বিলিয়ে দিয়ে শেখ হাসিনা জীবন থাকতেও কারও সঙ্গে চুক্তি করবেন না- বলেন ওবায়দুল কাদের।