সোহেল হত্যার সাথে সংশ্লিষ্ট অপরাধীদের শাস্তি পেতে হবে: ওবায়দুল কাদের

 

প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ও ছাত্রলীগ নেতা নাসিম আহমেদ ওরফে সোহেল হত্Obaydul Kaderযাকাণ্ডে জড়িতদের শাস্তি পেতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বুধবার চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজে) দ্বিবার্ষিক সম্মেলন ও গুণীজন সংবর্ধনায় তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্যে এই মন্তব্য করেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা কঠোর অবস্থানে আছি। এই ঘটনার সঙ্গে যারা জড়িত, বিচার তাদের হবেই। শাস্তি তাদের পেতেই হবে। আমি এখানে যে তথ্যগুলো পেয়েছি, সেগুলো প্রধানমন্ত্রীকে জানাব।’

প্রেসক্লাবের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এই সম্মেলনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী। সভাপতিত্ব করেন সিইউজের সভাপতি এজাজ ইউসুফী।

সেতুমন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে সোহেল হত্যাকাণ্ড, চট্টগ্রামের উন্নয়ন, রাজনীতি ও সাংবাদিকতা নিয়ে কথা বলেন। তিনি বক্তব্য দেওয়ার আগেই অনুষ্ঠানে সংবর্ধিত অতিথি নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী সভা ছেড়ে যান। মহিউদ্দিন চৌধুরী যাওয়ার পরপরই অনুষ্ঠানস্থলে আসেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘দুজন (মহিউদ্দিন ও নাছির) পাশাপাশি থাকলে খুব ভালো হতো। জোর গলায় আরেকটি কথা বলতাম যে আজকে যত ভালো অর্জনই থাকুক, ছোটখাট কিছু আচরণ ও ঘটনা বড় বড় অর্জনকে ম্লান করে দেয়। যেমন গতকালের ঘটনা ছাত্র রাজনীতির নামে, ছাত্রলীগের নামে একটি প্রাণ চলে গেল। মহিউদ্দিন ভাই থাকলে দুজনকে বলতাম এর দায়িত্ব আপনাদের। সাবেক ও বর্তমান মেয়র আপনাদের এর অবসান ঘটাতে হবে। তা না হলে যত অর্জনই থাকুক, তা ম্লান হয়ে যাবে।’ তিনি বলেন, ‘ছাত্রলীগ না করুক, ছাত্রলীগের নামে হচ্ছে। অনুপ্রবেশকারী যা-ই বলুন, কিন্তু ছাত্রলীগের নামে এটা হচ্ছে। সেই বাস্তবতাকে আমরা অস্বীকার করতে পারব না। ছাত্রলীগ করার অপরাধে একটি পরিবার সন্তানকে হারাবে। এখানে রাজনীতির প্রতি কারও আকর্ষণ থাকবে?’ তিনি আরও বলেন, ‘আমি আহ্বান জানাই, ভালো লোকেরা, সৎ লোকেরা রাজনীতিতে আসুন, মেধাবী লোকেরা আসুন। না হলে রাজনীতি খারাপ হয়ে যাবে। সৎ লোকেরা না আসলে অসৎ লোকেরা দেশ চালাবে, খারাপ লোকেরা দেশ চালাবে।’

সাংবাদিকদের বিভিন্ন দাবির বিষয়ে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সৎ সাংবাদিকতা যারা করে এই লোকগুলো অনেকটা কোণঠাসা। জীবনের শেষদিনগুলো তাদের মানবেতর কাটে। প্রত্যেকে তো আর ইয়েলো জার্নালিজম করে না।’

ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা অক্ষুণ্ন রাখতে কাজ করতে হবে। সেই সঙ্গে দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় ভূমিকা রাখতে হবে সাংবাদিকদের, পাশাপাশি জঙ্গিবাদ সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে কলম ধরতে হবে। সাংবাদিকদের বেতন বৈষম্য দূর করা প্রয়োজন বলে তিনি মন্তব্য করেন। তিনি আশা করেন, সাংবাদিকদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে নতুন বেতন বোর্ড হবে। পাশাপাশি ইলেকট্রনিক মিডিয়ারও আলাদা বেতন কাঠামো হবে।

অনুষ্ঠানে এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী, সাংবাদিক নাসিরুদ্দিন চৌধুরী ও হেলাল উদ্দিন চৌধুরীকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়।