ব্যাংকে ১ লাখ টাকার বেশি রাখলে গুনতে হবে বাড়তি খরচ

প্রস্তাবিত বাজেটে ব্যাংকিং লেনদেনে আবগারি শুল্কমুক্ত সীমা বাড়ানো হয়েছে। এক লাখ টাকা পর্যন্ত ব্যাংক হিসাব এখন থেকে থাকবে এই শুল্কের বাইরে। তবে প্রতিটি স্তরেই বাড়ছে শুল্কহার। সরকারের এই প্রস্তাব কার্যকর হলে ব্যাংকে টাকা রাখার ক্ষেত্রে আমানতকারীরা উৎসাহ হারাবে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকেরা।

বাড়তি খরচ আর অলস অর্থের কথা বলে কয়েক বছর ধরেই আমানতে নামমাত্র সুদ দিচ্ছে ব্যাংকগুলো। পাঁচ শতাংশ সুদ ও লুকানো নানা চার্জের কারণে ব্যাংকে আমানতের পরিমাণ কমছে।

গ্রাহকের ব্যাংক হিসাবে বছরের যে কোনো সময় লেনদেনের পরিমান ২০ হাজার টাকা ছাড়ালে ১২০ টাকা হারে আবগারি শুল্ক দিতে হয়। প্রস্তাবিত বাজেটে এই শুল্ক হার বাড়ানো হয়েছে। এখন থেকে এক লাখ টাকার নিচে হলে শুল্ক দিতে হবে না। তবে অধিক লেনদেনের ক্ষেত্রে বাড়ছে শুল্ক হার।

প্রস্তাবিত বাজেটে বছরের যে কোনো সময়ে লেনদেন এক লাখ থেকে ১০ লাখ টাকা হলে আবগারি গুল্ক তিনশ টাকা বেড়ে হবে আটশ টাকা। লেনদেন ১০ লাখ থেকে এক কোটি টাকা হলে শুল্ক বাড়বে হাজার টাকা। এক কোটি থেকে পাঁচ কোটি টাকা লেনদেনে সাড়ে চার হাজার এবং পাঁচ কোটি টাকার বেশি লেনদেনে ১০ হাজার টাকা বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।

শুল্ক বাড়লে লেনদেনে নেতিবাচক প্রভাব পড়ার আশঙ্কা করছেন বিশ্লেষকরা।

করের বোঝা বাড়লে নন ব্যাংকিং খাতে লেনদেন বাড়বে বলেও আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।