বৃষ্টি-জলাবদ্ধতায় নাকাল চট্টগ্রামবাসী

বৃষ্টি-জলাবদ্ধতায় নাকাল চট্টগ্রামবাসী

সকালটা আজ বৃষ্টি দিয়েই শুরু হয়েছে চট্টগ্রামবাসীর। মুষলধারে বৃষ্টিতে নগরবাসীর স্বাভাবিক চলাচলে দুর্ভোগ নেমে এসেছে । কোথাও হাঁটু সমান, কোথাও কোমর সমান আবার কোথাও বুক সমান পানি দেখা গেছে ।

৫ জুন (রোববার) সকাল থেকে বৃষ্টি, জোয়ার ও পাহাড়ি ঢলে এখানকার প্রায় নিচু এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

অনেক বাসা-বাড়িতে ঢুকে পড়েছে পানি। বিপাকে পড়েছে পরিবারের নারী ও শিশুরা। এতে বেশি দুর্ভোগে পড়ে নিম্ন আয়ের লোকজন। নগরীর বসতি ও পাহাড়ের কিনারে বসবাসকারীদের দুর্ভোগেরও কমতি নেই।

নগরীর বাকলিয়া, প্রবর্তক মোড়, চকবাজার, বাদুরতলা, কাপাসগোলা, হালিশহর, বড়পুল, ছোটপুল, আগ্রাবাদ সিডিএ আবাসিক এলাকা, মুরাদপুর, ষোলশহর ২ নম্বর গেট, ডিসি রোড, মিয়াখাননগর, দেওয়ান বাজার, কোরবানীগঞ্জ, খাতুনগঞ্জ, পাহাড়তলী বৃষ্টির পানিতে  প্লাবিত হয়েছে।

আগ্রাবাদ মা ও শিশু হাসপাতালের নিচতলায় ঢুকেছে হাঁটুসমান পানি। এতে রোগী ও অভিভাবকরা পড়েছে চরম দুর্ভোগে। হাসপাতালের নিচতলার কার্যক্রম বন্ধ হয়ে পড়েছে। হাসপাতালের আশপাশ এলাকা ডুবে গেছে। সেখানে কোমরসমান পানি মাড়িয়ে হাসপাতালে আসছে লোকজন।

চট্টগ্রামের পতেঙ্গা আবহাওয়া  অফিস জানিয়েছে, চট্টগ্রামে বেলা ১২ টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় ৮৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। প্রাক মৌসুমি বায়ু ও লঘুচাপের প্রভাবে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। তবে তা থেমে থেমে হবে। চট্টগ্রাম বিভাগের অনেক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়ার সঙ্গে হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি, বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

এ মাসে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত হবে। দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু বিস্তার লাভ করার অনুকূল পরিবেশ থাকতে পারে। চট্টগ্রামে বিভাগে ৭৮৯ মিলিমিটার স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত হিসেবে ধরা হয়েছে। এই মাসে বঙ্গোপসাগরে দুটি লঘুচাপ সৃষ্টি হতে পারে। এর মধ্যে একটি নিম্নচাপ অথবা গভীর নিম্নচাপে পরিণত হবে।

এছাড়া উত্তর মধ্যাঞ্চলে দুই থেকে তিনদিন মাঝারি অথবা তীব্র বজ্রঝড় ও অন্যান্য জায়গায় তিন থেকে চারদিন হালকা অথবা মাঝারি বজ্রঝড় হতে পারে। সেই সঙ্গে কোথাও কোথাও ভারী থেকে অতিভারী বর্ষণ হতে পারে।

 

Karnaphuli News