বাঁশখালীর সংঘর্ষের ঘটনায় ৩ মামলায় আসামি ৬০০০

স্কুলে বিয়ে অনুষ্ঠানের অনুমতি না দেওয়ায় প্রধান শিক্ষককে প্রাণনাশের হুমকি, যুবদল নেতা গ্রেপ্তার

 

চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ নির্মাণের প্রতিবাদ মিছিলে পুলিশের গুলিতে  নিহতের ঘটনায় পৃথক তিনটি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে দুটি মামলা করেছে নিহত ব্যক্তিদের পরিবার ও একটি মামলা করেছে পুলিশ। এসব মামলায় আসামি করা হয়েছে দেড়  থেকে দুই হাজার জনকে। আজ সকালে বাঁশখালী থানায় এসব মামলা করা হয়। এরপর থেকে বাঁশখালীর গণ্ডামারা ইউনিয়নের লোকজনের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। পুরুষদের রাস্তায় দেখা যাচ্ছে না। স্থানীয়  লোকজন বলছে, গ্রেপ্তার এড়াতে গ্রামবাসী সতর্ক রয়েছে। নিহত আনোয়ারুল ইসলাম ও মরতুজা আলীর ভাই মওলানা বশির আহমেদ বাদী হয়ে ছয়জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতপরিচয় ১৪ থেকে ১৫শ’ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেছেন। এজাহারে ছয়জন আসামির মধ্যে বসতভিটা ও গোরস্থান রক্ষা কমিটির আহ্বায়ক লিয়াকত আলীও রয়েছেন। নিহত জাকের হোসেনের স্ত্রী মনোয়ারা বেগম আরেকটি হত্যা মামলা করেছেন। এজাহারে তিনি কারও নাম উল্লেখ করেননি। বাঁশখালী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) বাহার মিয়া বাদী হয়ে পুলিশের ওপর হামলা ও কাজে বাধাদানের অভিযোগে ৫৭ জনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাতনামা এক হাজার জনকে আসামি করে আরেকটি মামলা করেছেন।