পাহাড়তলীতে র‍্যাবের অভিযানে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন নেভিগেশনাল যন্ত্রপাতি উদ্ধার

navigation device

নগরীর পাহাড়তলী সিডিএ মার্কেট সংলগ্ন আবদুল বাকের রোডের গোলাম মোস্তফা মার্কেট থেকে গতকাল রবিবার আট কোটি টাকার ডিভাইস উদ্ধার করেছে র‌্যাব-৭। এ সময় চার ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

র‌্যাবের সংবাদ মাধ্যমে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, রবিবার দিবাগত রাতে গোলাম মোস্তফা মার্কেট ও আবদুল বারেক রোড থেকে এসব ডিভাইস উদ্ধার করা হয়েছে। জেলা প্রশাসনের ম্যাজিস্ট্রেটের সহায়তায় র‌্যাবের অভিযানে উদ্ধার করা ডিভাইসের মধ্যে রয়েছে, ৩৪টি স্যাটেলাইট ফোন, ১৩২টি রেডিও সেট, দুটি ফার্নো রেডিও এরিয়াল, দুটি জেআরসি রাডার এন্টেনা, তিনটি ট্যান্সমিশন ইউনিট, চারটি ব্রিজ এ্যালার্ম, পাচটি রিসিভার, একটি সেইলর সেট কমিউনিকেশন টার্মিনাল, আটটি এন্টেনা চারটি পাওয়ার সাপ্লাই ইউনিট, দুটি জেআরসি প্রিন্টার, দুটি কি- বোর্ড, নয়টি হ্যান্ডসেট, ২২টি র‌্যাডার ডিসপ্লে, সাতটি ডোপলার লগ, ৭৬টি জিপিএস নেভিগেটর, ১১৭টি নেভটেক্স রিসিভার, সাতটি এআইএস, ছয়টি ফার্নো এন্টেনা উইথ রিসিভার, চারটি পাইরোটেকনিক আইটেমসহ বিপুল পরিমাণ কমিউনিকেশন এবং নেভিগেশনাল যন্ত্রাংশ। নিষিদ্ধ ডিভাইস বিক্রি করা অপরাধে যাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তারা হলেন, কুষ্টিয়ার শফিকুর ইসলাম, কুমিল্লার শামছুল আলম, মো.লিটন ও মুন্সিগঞ্জের জুয়েল।
র‍্যাবের এক কর্মকর্তা বলেন, বাংলাদেশে টেলি কমিউনিকেশন আইন অনুযায়ী স্যাটেলাইট ফোন, হাই ফ্রিকুয়েন্সি সেট, ভেরী হাই ফ্রিকুয়েন্সি যন্ত্রপাতি সরকারের অনুমতি ছাড়া বিক্রি করা নিষেধ। এ প্রযুক্তিগত উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন কমিউনিকেশন ডিভাইস সাধারণ মানুষের হাতে গেলে দেশের সার্বভৌমত্ব নিরাপত্তার হুমকীর মুখে পড়তে পারে। উদ্ধার করা যন্ত্রপাতি আনুমানিক বাজারমূল্য প্রায় আট কোটি টাকা।