ডিবির সঙ্গে ছাত্রলীগের ব্যাপক সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ১৫

 

পোশাক কারখানার ঝুট ব্যবসাকে কেন্দ্র করে সাভারে গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের সঙ্গে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীর ব্যাপক সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এতে পুলিশসহ অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন। পরে অতিরিক্ত পুলিশ এসে কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনাস্থল থেকে বুলু (২০) নামে এক ছাত্রলীগ কর্মীকে আটক করা হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সাভারের নামা গেণ্ডা এলাকার ডায়নামিক সোয়েটার কারখানার সামনে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মোশারফ নামে এক ব্যবসায়ী দীর্ঘদিন ধরে সাভারের নামা গেণ্ডা ডায়নামিক সুয়োটার কারখানার ঝুট ব্যবসা করে আসছিলেন। তবে কয়েক মাস ধরে সাভার থানা ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকুর রহমান আতিক ওই ঝুট ব্যবসা তার দখলে নেয়ার চেষ্টা করেন। মঙ্গলবার বিকেল ৪টার দিকে মোশারফের লোকজন ওই কারখানার ঝুট বের করার কাজ শুরু করলে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা বাধা দেন। এ সময় উভয়পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সংঘর্ষ বেধে যায়। খবর পেয়ে ঢাকা জেলার উত্তরের গোয়েন্দা পুলিশের উপ পরিদর্শক (এসআই) জিল্লুরের নেতৃত্বে একটি দল পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করলে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাদের সঙ্গেও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। প্রায় আধাঘণ্টা ধরে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার পর অতিরিক্ত পুলিশ এসে কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এতে পুলিশ ও ছাত্রলীগের ১৫ জন আহত হন। তাদের উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়াও ঘটনাস্থল থেকে বুলু নামে ছাত্রলীগের এক কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। এ ব্যাপারে ঢাকা জেলা উত্তর গোয়েন্দা পুলিশের (ওসি) মোস্তফা কামাল বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় আহত পুলিশ সদস্যদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তারে অভিযান পরিচালনা করা হবে। এ ব্যাপারে সাভার থানা ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।