চট্টগ্রাম থেকে আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট চালু হচ্ছে আজ

দেশে ফিরেছেন সৌদি আরবে আটকে পড়া ৪০৯ জন বাংলাদেশি নাগরিক।  বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের কারনে তারা সৌদি আরবে আটকা পড়েছিলেন বলে জানা যায়।

 

আজ থেকে চট্টগ্রাম শাহ্‌ আমানত আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর থেকে আন্তর্জাতিক রুটে বিমান চলাচল শুরু হচ্ছে ।

তবে আপাতত শাহ্‌ জালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর হয়ে বাংলাদেশ বিমানের আন্তর্জাতিক রুটের চলাচল শুরু হচ্ছে ।

চট্টগ্রাম থেকে পুনরায় বিমান চলাচলের তথ্য গনমাধ্যমে জানিয়েছে চট্টগ্রাম শাহ্‌ আমানত আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরের বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ব্যবস্থাপক ইমরুল হাসান ।

তিনি বলেন, ৬ জুলাই সোমবার দুপুর পৌনে ২ টায় নতুন ফ্লাইটটি চট্টগ্রামের শাহ্‌ আমানত বিমান বন্দর থেকে যাত্রা শুরু করবে ।

শুরুতে চট্টগ্রাম থেকে সরাসরি বিমান চলাচলের কথা থাকলেও আপাতত বাংলাদেশ বিমানের সবকটি ফ্লাইট ঢাকা শাহ্‌ জালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর হয়ে চলাচল করবে বলে জানান তিনি ।

ইমরুল হাসান বলেন, চট্টগ্রামের যাত্রীরা অভ্যান্তরীন রুটে ঢাকা গিয়ে সেখান থেকে সন্ধ্যা ৭ টার সময়

বাংলাদেশ বিমানের ড্রিমলাইনার যোগে দুবাই ও আবুধাবি রুটে যাত্রা করবে ।

প্রতি সপ্তাহে দুবাই ও আবুধাবি রুটে ২ করে ৪ টি বিমান চলাচলের কথা থাকলেও সরকারি নির্দেশনা মেনে তা পরিবর্তন হতে পারে ।

এরই মধ্যে চট্টগ্রাম থেকে আন্তর্জাতিক রুটে আবুধাবি গামি ৮ জুলাইয়ের সরাসরি ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে বলেল জানান তিনি ।

এছাড়া চট্টগ্রাম থেকে অভ্যন্তরীন রুটে ৩ টি করে ফ্লাইট চালু করছে বিমান ।

উল্লেখ্য, করোনা মহামারীর কারণে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মত বাংলাদেশেও বিমান চলাচল স্থগিত করা হয় ।

তবে বর্তমানে পরিস্থিতি বিবেচনা করে তা আবার চালু করার চিন্তা ভাবনা করছে সরকার ।

 

চট্টগ্রামে করোনার সর্বশেষ

চট্টগ্রামে গতকাল ২২০ জনের  দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

তারমধ্যে চট্টগ্রাম মহানগরীতে আক্রান্তের সংখ্যা ১৬২ জন এবং চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলায় ৫৮ জন ।

চট্টগ্রামে গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু হয়েছে  ২ জনের। সুস্থ হয়েছে ৩৯ জন ।

আজ ৫ জুলাই গত ২৪ ঘন্টার এ তথ্য প্রকাশ করেন চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন ফজলে রাব্বি ।

চট্টগ্রামের বিআইটিআইডিতে ১৪১ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তারমধ্যে চট্টগ্রাম মহানগরে ১১ টি এবং চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলায় ৩ টি রিপোর্ট পজেটিভ পাওয়া যায় ।

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাঁসপাতালে ৪৪৮ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয় ।

তারমধ্য মহানগর এলাকার ৭৭ জন এবং চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলায় ১৬ জনের পজেটিভ রিপোর্ট পাওয়া যায়।

ভেটেনারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০৩ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয় । তারমধ্য চট্টগ্রাম মহানগর এলাকায় ৩ জন এবং চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলায় ১৭ জনের পজেটিভ রিপোর্ট পাওয়া যায় ।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫১ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয় ।

তারমধ্যে চট্টগ্রাম মহানগরে ৫ টি এবং চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলায় ৫ টি পজেটিভ রিপোর্ট পাওয়া যায় ।

কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ হাপাতালে ৩ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয় । তারমধ্যে পজেটিভ রিপোর্ট পাওয়া যায়নি ।

শেভরণ ল্যাবরেটরীতে ২০৪ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয় ।

তারমধ্যে চট্টগ্রাম মহানগরে ৬৬ টি এবং চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলায় ১৭ টি পজেটিভ রিপোর্ট পাওয়া যায় ।