চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড এলাকায় পিকনিকের বাস উল্টে ৫০ জন আহত

FB_IMG_1455304156892

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার মাদামবিবিরহাট এলাকায় পিকনিকের বাস উল্টে অভিভাবকসহ অন্তত৫০ জন ছাত্র-ছাত্রী আহত হয়েছেন।

১২ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার রাত পৌনে ৮টার দিকে মাদামবিবিরহাট চেয়ারম্যানঘাট এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। কুমিরা ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় এলাকাবাসীর সহায়তায় দুর্ঘটনায় আহতদের উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এদের মধ্যে ৫-৬ জনের অবস্থা আশঙ্কজনক বলে জানিয়েছেন ফায়ার সার্ভিসকর্মীরা।
আহত কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শুক্রবার সকালে নোয়াখালীর সোনাগাজী ডাকবাংলা আল-হেরা একাডেমির ছাত্র-ছাত্রী (প্লে-পঞ্চম শ্রেণির), শিক্ষক ও অভিভাবকসহ মোট ৮১ জন ফেনী জ-১১-৩০৩৪ নম্বরের একটি বাসযোগে চট্টগ্রামের আনোয়ারা থানার পারকির চরে পিনকিনে আসেন। বিকেল ৫টার দিকে পিকনিক শেষে তারা গন্তব্যের উদ্দেশে রওনা দেয়। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার সময় তাদের বহনকারী বাসটি সীতাকুন্ড থানার মাদামবিবিরহাট চেয়ারম্যান ঘাটা এলাকায় অতিক্রমকালে হঠাৎ নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার মাঝখানে থাকা আইল্যান্ডে উঠে উল্টে যায়।
অভিভাবক মিয়া কালা জানান, নির্দিষ্ট সময় পৌঁছানোর জন্য বাসচালক অনেক আগে থেকে বেপরোয়া ভাবে বাস চালিয়ে যাচ্ছিলেন। অনেক বার বারণ করা সত্ত্বেও সে তার গাড়ির গতি কমায়নি। যার পরিণতি হল এই ভয়ানক দুর্ঘটনা। তিনি বলেন, আমার দেখা অনুযায়ী বাসে থাকা হেলপারের পা ছিন্ন বিছিন্ন হয়ে গেছে।
এ ব্যাপারে ঘটনাস্থল থেকে বারআউলিয়া হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শহিউল্লাহ বলেন, দুর্ঘটনার খবর শুনে তাৎক্ষনিকভাবে আমরা ঘটনাস্থলে এসেছি। এলাকাবাসীর সহযোগিতায় ফায়ার সার্ভিস উদ্ধার কাজ করছে। বেশ কয়েকজন আহতদেরকে চমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তবে এদের মধ্যে ৫-৬ জনের অবস্থা গুরুতর।চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির এএস আই পঙ্কজ বড়ুয়া জানান, শুনেছি সীতাকুণ্ডে বড় একটা দুর্ঘটনা ঘটেছে। আহতদের হাসপতালে আনা হচ্ছে।