কোনটা বেশি মাননসই চাকরি নাকি ব্যবসা ?

entrepreneurs

তরুণ প্রজন্মের মধ্যে এখন প্রায় তরুণ তাদের কর্মজীবনে কোন ধরনের পেশা গ্রহন করবে তা নিয়ে চিন্তিত। কেউ ভাবছে চাকরি ভালো আবার কেউ ভাবছে ব্যবসা ভালো। স্বাভাবিক ভাবেই  এই নিয়ে একটি বিতর্ক এসে যায়।

তবে যারা আগে থেকেই নির্দিষ্ট পেশা নিয়ে শিক্ষা গ্রহন করেছে তাদের কথা ভিন্ন। যেমন ডাক্তার, সাংবাদিক, ইঞ্জিনিয়ার, আইনজীবিসহ এধরনের পেশাগত কাজের জন্য যারা নিজেকে প্রস্তুত করেছেন তারা তাদের নিজ নিজ পেশায় জীবন ধারনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু এই সকল পেশায় সবাই সফল হতে পারেনা। উদাহরণ হিসেবে বলতে পারি অনেক ডাক্তার আছেন যারা এখনো ২০০ টাকা ফি নির্ধারন করেও পর্যাপ্ত রোগির দেখা পাননা।

যাইহোক আমাদের মূল বিষয় হল চাকরি না ব্যবসা কোনটা ভালো?

চাকরি হল নির্দিষ্ট বেতনের জন্য মাসব্যাপী ঘণ্টা মেনে কাজ করা। অবশ্য এর মধ্যে সরকারী ছুটি এবং বোনাস থাকে। কিন্তু ব্যক্তি স্বাধীনতা বলতে তেমন কিছুই থাকেনা। কখনো কখনো আবার চাকরি যে থাকবে তারও কোন নিশ্চয়তা নেই। সরকারী চাকরিতে অবশ্য চাকরি যাওয়ার ঝুঁকি কম থাকলেও ব্যক্তিত্ব নিয়ে টিকে থাকার ঝুঁকি থাকে বেশি। যারা চাকরি করে তাদের আত্মবিশ্বাস কমে যায়। কারণ চাকরিতে তারা মেধা কাজে লাগানোর যথেষ্ট সুযোগ পাননা। তবে মাস শেষে বেতন পেয়ে একজন চাকরিজীবী নিশ্চিন্ত থাকে কারণ তার লাভক্ষতির হিসাব মেলাতে হয়না। এসব লাভক্ষতির হিসেব করবে প্রতিষ্ঠানের মালিক মানে বস। আর বসের তোষামোদ না করে চাকরি ?  কখনো চিন্তা করা যায়না। কারণ বসকে যতই তেল দিবেন ততই নিরাপদে থাকবেন অন্যথায় গরম কথা বলেছেন তো ফেঁসেছেন। এতকিছুর পরেও চাকরিজীবী ঘরের সদস্যদের চাকরি করার প্রতি আগ্রহ থাকে। কারণ তারা বিনিয়োগে ঝুঁকি নিতে ইচ্ছুক নন। পড়ালেখা করে সার্টিফিকেট নিয়ে একটি চাকরি করাই তাদের মূল উদ্দেশ্য। এছাড়া অনেকের আর্থিকভাবে অসচ্ছলতার কারণে অনিচ্ছাসত্ত্বেও চাকরি করে জীবন যাপন করে।

ব্যবসায় হল একটি স্বাধীন পেশা, যে পেশায় লাভও বেশি ক্ষতিও বেশি। এজন্য দরকার দক্ষতা এবং আর্থিকভাবে সচ্ছলতা। একজন ব্যবসায়ী শুধু নিজেই ব্যাবসা করে তা কিন্তু নয় তিনি অন্যের কর্মসংস্থান নিশ্চিত করতে পারে। ব্যবসায়ে নিজের স্বাধীনতা এবং ব্যক্তিত্বের উপর ভরসা করা যায়। একজন ব্যবসায়ী সব সময় তার সিদ্ধান্তের উপর শ্রদ্ধাশীল হয়।

আপনি যদি ব্যবসায় করতে চান তাহলে নিজেকে এখুনি গুছিয়ে নিন। হতে পারে সল্প পুঁজি। কিন্তু নিজের উপর যদি আত্মবিশ্বাস থাকে এবং সততা থাকে তাহলে ব্যবসায়ে আপনার সাফল্য নিশ্চিত। তবে এর জন্য প্রয়োজন সঠিক পরিকল্পনা এবং পর্যাপ্ত অর্থ এবং বিনিয়োগের সঠিক ক্ষেত্র।

প্রাচীন কাল থেকেই এই বঙ্গে অনেক বিদেশিরা এসেছে ব্যবসায় করার জন্য। এই ব্যবসার কারনে দেশ ইংরেজ দের অধিনস্ত ছিল ২০০ বছর। এরপর  ঐতিহাসিক যুদ্ধ এবং এই ভারতীয় উপমহাদেশের বিভক্তি। তারপরেও দিন দিন ব্যবসার উন্নতি হচ্ছে। দেশের অর্থনীতি এগিয়ে যাচ্ছে। নিজ দেশের অর্থায়নে পদ্মা সেতু হচ্ছে।

তাহলে আমরা এখন কি বলতে পারি ব্যবসায় নাকি চাকরি ? আমি বলবো যদি সামার্থ থাকে এবং চ্যালেঞ্জ করার মানসিকতা থাকে ব্যবসায় আর যদি মাস শেষে বেতনভোগী কর্মচারী হতে হলে চাকরি।

 

 

মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম

সাংবাদিক এবং তরুণ উদ্যোক্তা

msislamctg007@gmail.com

Do NOT follow this link or you will be banned from the site!